বিপুল পরিমাণ দে‌শি‌-‌বি‌দে‌শি মুদ্রাসহ বিমানের কেবিন ক্রু আটক

বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি মুদ্রাসহ বিমানের সেহজাদ না‌মে এক কেবিন ক্রুকে আটক করা হ‌য়ে‌ছে।

শ‌নিবার সন্ধ‌্যা সা‌ড়ে ছয়টার দি‌কে জেদ্দাগামী বিমান থেকে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি মুদ্রা উদ্ধার করা হয়।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, বিমানের ফ্লাইটটি ঢাকা থেকে জেদ্দা ছেড়ে যাওয়ার পূর্ব মুহুর্তে বিমানের নিরাপত্তা বাহিনী, কাস্টমস ও সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তা বাহিনী তা‌কে আটক করে। পরে ওই কেবিন ক্রুর পরিবর্তে অন্য একজন কেবিন ক্রুকে বিমানের জেদ্দাগামী ফ্লাইটে পাঠানো হয়।

সূত্র জানায়, এর আগেও কেবিন ক্রু সেহজাদ বিপুল পরিমাণ দেশি বিদেশি মুদ্রাসহ আটক হয়েছিলেন। সেসময় প্রভাবশালী মহলের তদবিরে তিনি পার পেয়ে যান। সেহজাদের স্ত্রীও একজন কেবিন ক্রু। এই চক্রটি মুদ্রা পাচারের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকার অবৈধ পণ্য দেশে ঢোকায়।

মামলা করতে আদালতে নগর বাউল জেমস!
গান কপিরাইটের অভিযোগে ঢাকার নিম্ন আদালতে মামলা করতে গিয়েছিলেন নগর বাউল জেমস। তবে আদালতের পরামর্শে তিনি মামলা না করে ফিরে গেছেন।

একটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানির বিরুদ্ধে রোববার সকালে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতে মামলা করতে আবেদন করেন তিনি।

এ সময় বিচারক তাকে থানায় (গুলশান থানা) গিয়ে মামলা করতে পরামর্শ দেন। দুপুর ১টার দিকে তিনি বিচারকের পরামর্শে আদালত প্রাঙ্গণ ত্যাগ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেমসের আইনজীবী তাপস কুমার।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) তাপস কুমার পাল বলেন, জেমস আদালতে একটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানির বিরুদ্ধে কপিরাইট আইনে মামলার আবেদন করতে আসেন।

বিচারক গুলশান থানায় গিয়ে মামলা দায়েরের পরামর্শ দেন। এছাড়া থানায় যদি মামলা না নেয় তাহলে আদালতে এসে মামলার আবেদন করতে বলেন।

গান কপিরাইটের অভিযোগে ঢাকার নিম্ন আদালতে মামলা করতে গিয়েছিলেন নগর বাউল জেমস। তবে আদালতের পরামর্শে তিনি মামলা না করে ফিরে গেছেন।

একটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানির বিরুদ্ধে রোববার সকালে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতে মামলা করতে আবেদন করেন তিনি।

এ সময় বিচারক তাকে থানায় (গুলশান থানা) গিয়ে মামলা করতে পরামর্শ দেন। দুপুর ১টার দিকে তিনি বিচারকের পরামর্শে আদালত প্রাঙ্গণ ত্যাগ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেমসের আইনজীবী তাপস কুমার।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) তাপস কুমার পাল বলেন, জেমস আদালতে একটি মোবাইল অপারেটর কোম্পানির বিরুদ্ধে কপিরাইট আইনে মামলার আবেদন করতে আসেন।

বিচারক গুলশান থানায় গিয়ে মামলা দায়েরের পরামর্শ দেন। এছাড়া থানায় যদি মামলা না নেয় তাহলে আদালতে এসে মামলার আবেদন করতে বলেন।

Check Also

কলেজ অধ্যক্ষকে নেতার চড় মারার মুহূর্ত ধরা পড়ল ক্যামেরায়

কলেজ অধ্যক্ষকে চড় মারছিলেন এক নেতা। একবার নয়, একাধিকবার। আর সেই মুহূর্তটি ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.