‘ক’স্ট স’হ্য করতে’ না পেরে স্বামীর বিশেষ অ’ঙ্গ ও গ’লা’কে’টে হ’ত্যা

ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের দরবেশ বাড়িতে কষ্ট সহ্য করতে না পেরে স্বামীর বিশেষ অঙ্গ ও গলাকেটে হত্যা করেছে স্ত্রী।

পুলিশের কাছে এমনই স্বীকারোক্তি দিয়েছেন স্ত্রী নূরুন্নাহার। স্ত্রী জানিয়েছেন, স্বামী তাকে কষ্ট দিতো এই ক্ষোভ থেকে তিনি হত্যা করেছেন। রোববার দুপুরে নিজ বসতঘর থেকে আব্দুল মান্নান বেপারী (৪০) নামের এক কাঠ ব্যবসায়ীর বিশেষ অঙ্গ ও

গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর দুই সন্তান নিয়ে পালিয়ে যান ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী নূরুন্নাহার। সন্ধ্যার দিকে ওই ইউনিয়নের নতুন মসজিদ এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

ঘটনা নিয়ে রাতে লালমোহন থানায় প্রেস ব্রিফিং করেন ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবুল কালাম আজাদ। এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান,

কাঠ ব্যবসায়ী আ. মান্নান বেপারীকে রোববার সকাল ৬টার দিকে নিজ ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন স্ত্রী নূরুন্নাহার। পরে নিজের ৫ ও ৭ বছরের দুই সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে যান তিনি।

হত্যার ঘটনা স্বীকার করে স্ত্রী নূরুন্নাহার পুলিশকে বলেছেন, স্বামী তাকে কষ্ট দিতো, এ কারণে তিনি স্বামীকে হত্যা করেছেন। এ ঘটনায় নিহতের ভাই বাদি হয়ে লালমোহন থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

Check Also

কলেজ অধ্যক্ষকে নেতার চড় মারার মুহূর্ত ধরা পড়ল ক্যামেরায়

কলেজ অধ্যক্ষকে চড় মারছিলেন এক নেতা। একবার নয়, একাধিকবার। আর সেই মুহূর্তটি ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.