Breaking News

নি’র্যাত’ন সইতে না পেরে গো’পনা’ঙ্গ কে’টে স্বামীকে ‘হ’ত্যা’

ভোলার লালমোহনে নিজ বসতঘর থেকে আব্দুল মান্নান বেপারী (৪০) নামের এক কাঠ ব্যবসায়ীর বিশেষ অঙ্গ ও গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে উপজেলার ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের দরবেশ বাড়ি থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার পর দুই সন্তান নিয়ে পালিয়ে যান ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী নূরুন্নাহার। সন্ধ্যার দিকে ওই ইউনিয়নের নতুন মসজিদ এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

এ ঘটনায় ওই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। শনিবার রাতের কোনো এক সময় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা।

লালমোহন থানার এসআই নূরউদ্দিন জানান, দুপুরের দিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত আব্দুল মান্নানের পুরুষাঙ্গসহ গলা ও মুখের বিভিন্ন স্থানে কাটা রয়েছে।

ছুরি এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রীকে আটকের পর পুলিশ হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

টাকার জন্য মাকে কোপাল পালক ছেলে

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভায় সন্ত্রাসী দুই বন্ধুসহ পালকপুত্র মো. রুবেল (২০) তার মা পারুল আক্তারকে (৫০) কুপিয়ে আহত করে টাকা লুট করে নিয়েছে।

শনিবার গভীর রাতে বসুরহাট পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের জমিন মাঝির বাড়ির মুকবুল আহাম্মদের বসতঘরে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ওই ঘটনায় পালিতপুত্র সন্ত্রাসী রুবেল ও তার দুই সহযোগী ওই এলাকার আলী মাঝি বাড়ির সিরাজ উল্যার ছেলে সালাউদ্দিন (২০), মো. ইউসুপের ছেলে মো. ইউনুছকে (২১) গ্রেফতার করেছে।

গুরুতর আহত অবস্থায় পারুল আক্তারকে প্রথমে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসার পর নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় রুবেলের পালিত পিতা প্যারালাইসিস রোগী বৃদ্ধ মুকবুল আহম্মদ (৬০) বাদী হয়ে আটক ৩ জনকে আসামি করে কোম্পানীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার বাদী মুকবুল আহম্মদ জানান, উপার্জনক্ষম কোনো সন্তান না থাকায় চিকিৎসার জন্য তার বসতবাড়ির দেড় শতাংশ জমি বিক্রি করেন। ওই জমির বায়না বাবদ ২০ হাজার টাকা ঘরে রাখা ছিল। ওই রাতে পারুল আক্তার প্রাকৃতিক ডাকে ঘরের বাহিরে গেলে টাকার লোভে পালক ছেলে রুবেল ও তার দুই সহযোগীসহ শনিবার রাত ১টায় তার বসতঘরে প্রবেশ করে।

এ সময় ঘরে ফেরা মা পারুল আক্তারের কাছে শোকেসের চাবি চায় রুবেল। চাবি দিতে অস্বীকার করলে তার সহযোগীরাসহ এলোপাতাড়ি মা পারুল আক্তারকে হত্যার উদ্দেশ্যে বঁটি দিয়ে কুপিয়ে পিঠসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে ওই টাকা নিয়ে যায়। আশপাশের লোকজন মুকবুল ও তার স্ত্রী বৃদ্ধা পারুলের চিৎকার শুনে তিনজনকে আটক করে পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাধ্যমে পুলিশে সোপর্দ করেন।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, গ্রেফতার তিনজনকে আদালতের মাধ্যমে নোয়াখালী কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

কলেজ অধ্যক্ষকে নেতার চড় মারার মুহূর্ত ধরা পড়ল ক্যামেরায়

কলেজ অধ্যক্ষকে চড় মারছিলেন এক নেতা। একবার নয়, একাধিকবার। আর সেই মুহূর্তটি ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.