Breaking News

ইভা রহমান থেকে যে কারণে ইভা আরমান

দ্বিতীয় বিয়ের পর নিজের নামের শেষে ‘রহমান’ বাদ দিয়েছেন কণ্ঠশিল্পী ইভা। অর্থাৎ নামের সঙ্গে আর ‘রহমান’ অংশটি থাকছে না। নতুন করে নামের সঙ্গে যুক্ত করেছেন ‘আরমান’। এ বিষয়ে ইভা বলেন, এখন থেকে আমাকে আর ‘ইভা রহমান’ নয়, ‘ইভা আরমান’ ডাকবেন।’’

ইভা রহমান কিংবা তার মতে ইভা আরমান জানান, গত ৪ জুন তার বিচ্ছেদ হয়। গত ১৭ সেপ্টেম্বর ডিভোর্স সার্টিফিকেট হাতে পান। তখন থেকেই নাম থেকে ‘রহমান’ মুছে ফেলেছেন। আর নতুন করে নামের শেষে যুক্ত করেছেন ‘আরমান’। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ‘ইভা রহমান’ বাদ দিয়ে লিখেছেন ‘ইভা আরমান’।

ইভা বিয়ে করেছেন সোহেল আরমান নামে এক ব্যবসায়ীকে। নতুন স্বামীর নামের শেষ অংশ নিজের নামে যুক্ত করেছেন বলে জানান ইভা।

রবিবার ইভার গুলশানের বাসায় দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। ইভা বলেন, ‘ঘরোয়া আয়োজনে আমাদের বিয়ে হয়েছে। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

ইভার গাওয়া গানের অ্যালবাম সংখ্যা ৩০টির মতো। এর মধ্যে ‘মনের না বলা কথা’, ‘মন ভেসে যায়’, ‘মন জোনাকী’, ‘মনে পড়ে যায়’, ‘মনের যে কথা’, ‘মন আধার’, ‘মন থেকে দূরে নও’, ’মন আমার’, ‘মন সাগরে ভাসি’ এবং ‘মনের তুলিতে আঁকি’ অ্যালবামের বাছাই করা কিছু গানের ভিডিও চিত্রায়ন হয়েছে দেশে এবং দেশের বাইরের লোকেশনে।

মা-বাবার নামে মামলা করলেন অভিনেতা থালাপাতি

ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা থালাপাতি বিজয় ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। এতে তার বাবা এসএ চন্দ্র শেখর ও মা শোভা চন্দ্র শেখরের নামও রয়েছে।

তামিলনাড়ু রাজ্যের মাদ্রাজ সিটি কোর্টে এ মামলা করেছেন তেলেগু সুপারস্টার। খবর ইন্ডিয়া টুডে।

বাবা-মাসহ তার সাবেক কর্মকর্তা যেন বিজয়ের নাম অথবা তার ফ্যান ক্লাবের নাম রাজনৈতিক দলে ব্যবহার করতে না পারেন, সে বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন বিজয়।

কয়েক মাস আগে বিজয় ও তার বাবা-মায়ের সঙ্গে বিবাদসংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছিল। এ বিবাদের কারণ বিজয় ফ্যান অ্যাসোসিয়েশন নামে যে ফ্যান ক্লাব রয়েছে, সেটিকে রাজনৈতিক দলে রূপান্তর করেছেন তার বাবা-মা। আর সেই কারণে বাবা-মাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তিনি।

বিজয়ের বাবা এসএ চন্দ্র শেখর ‘অল ইন্ডিয়া থালাপাতি বিজয় মাকল আইয়াকাম’ নামে একটি রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করেছেন।

ভারতের নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে, দলটির কোষাধ্যক্ষ বিজয়ের মা শোভা চন্দ্রশেখর এবং সাধারণ সম্পাদক তার বাবা এসএ চন্দ্র শেখর। সবার ধারণা ছিল— খুব শিগগির এই দলে যোগ দেবেন বিজয়ও। কিন্তু তা করেননি এ অভিনেতা।

বিজয়ের বাবা এসএ চন্দ্র শেখরের ভাষ্য— বিজয় বর্তমানে একটি ‘বিষাক্ত’ চক্রের মধ্যে আটকে আছেন এবং তার সঙ্গে যেসব ব্যক্তি আছেন, তারা বিজয়ের জনপ্রিয়তাকে ব্যক্তিগত সুবিধার জন্য ব্যবহার করছেন। তারাই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে দেখিয়েছেন যে বিজয়ের বাবা যা করছেন, তা অভিনেতার বিরুদ্ধে।

এর আগে ২০২০ সালের নভেম্বরে বিজয় একটি লিখিত বিবৃতি প্রকাশ করেন। সেখানে অভিনেতা বলেছিলেন, আমার বাবার দেওয়া রাজনৈতিক বিবৃতির সঙ্গে আমার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ কোনো সম্পর্ক নেই। আমি আমার ভক্তদের অনুরোধ করছি, আমার বাবা যে পার্টি শুরু করেছেন, তাতে যোগ দেবেন না। যদি কেউ আমার রাজনৈতিক আকাঙ্ক্ষার জন্য আমার ছবি, নাম বা আমার ফ্যান ক্লাবের অপব্যবহার করার চেষ্টা করেন, তবে আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

Check Also

সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার বাবা

ঘটনাটা মাত্র সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার। এই পাঁচ ঘণ্টার ঘটনা লিখতেই যখন এত শব্দ লাগল, তাহলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.