Breaking News

শাড়ি পরায় রেস্টুরেন্টে ঢুকতে দেওয়া হলো না তরুণীকে (ভিডিও)

ভারতীয় উপমহাদেশের নারীদের ঐহিত্যবাহী পোশাক শাড়ি। শাড়ি বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলংকার নারীদের অন্যতম প্রধান পোশাক। বিশ্বজুড়ে এই উপমহাদেশের নারীদের প্রতিনিধিত্ব করে শাড়ি।

কিন্তু শাড়ি পরায় এক তরুণীকে রেস্টুরেন্টে ঢুকতে দেয়নি কর্তৃপক্ষ। রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষের দাবি, শাড়ি মোটেও স্মার্ট পোশাক নয়। তাই শাড়ি পরিহিত কাউকে তারা রেস্টুরেন্টে ঢুকতে দেবেন না।

ভারতের রাজধানী দিল্লির অ্যাকুইলা রেস্টুরেন্টে ওই ঘটনা ঘটে বলে বুধবার গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, ওই তরুণী বারবার জিজ্ঞাসা করছেন কেন শাড়ি পরে তিনি রেস্টুরেন্টে ঢুকতে পারবেন না। তখন রেস্টুরেন্টের এক নারী কর্মী জানান, ম্যাম আমরা স্মার্ট পোশাক ছাড়া রেস্টুরেন্টে ঢোকার অনুমতি দেই না। শাড়ি স্মার্ট পোশাকের মধ্যে পড়ে না।

আনিতা চৌধুরী নামে এক নারী ওই ভিডিও টুইটারে পোস্ট করেন। ভিডিও ক্যাপশনে বলা হয়েছে, অ্যাকুইলা রেস্টুরেন্টে শাড়ি পরে প্রবেশের অনুমতি নেই। কারণ ভারতীয় শাড়ি নাকি স্মার্ট পোশাক নয়। স্মার্ট পোশাকের সুনির্দিষ্ট সংজ্ঞা আসলে কী তা জানতে চাই। দয়া করে স্মার্ট পোশাকের সংজ্ঞা দিন যেন আমি শাড়ি পরা বন্ধ করতে পারি।

১৬ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটি ফেসবুক, টুইটার ও ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ওই ভিডিও দেখা হয়েছে প্রায় আড়াই লাখ বারের মতো। ভিডিও দেখার পর ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন তারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই রেস্টুরেন্টের পেজে গিয়ে নেগেটিভ রিভিউ দিচ্ছেন তারা।

তবে ঠিক কবে ওই ভিডিও ধারণ করা হয়েছে আর ভিডিওটি কে ধারণ করেছে তা জানা যায়নি। এ ব্যাপারে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

সৃজিতের সঙ্গে প্রেম নিয়ে যা বললেন ‘সাবেক প্রেমিকা’

সৃজিত মুখার্জি কলকাতার একজন গুণী পরিচালক, অভিনেতা, চিত্রনাট্যকার ও অর্থনীতিবিদ। ২০১০ সালে প্রথম চলচ্চিত্র অটোগ্রাফ পরিচালনার পরপরই তিনি আলোচনায় আসেন। তিনি ভারতে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পান। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে বাংলাদেশি অভিনেত্রী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলাকে বিয়ে করেন।

মিথিলার সঙ্গে সংসার বাঁধার আগে অনেকের সঙ্গে নাম জড়িয়েছে সৃজিতের। ২০১৮ সালে ‘এক যে ছিল রাজা’ সিনেমা নির্মাণ করেন সৃজিত। এতে যীশু সেনগুপ্তর স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেন অভিনেত্রী ইন্দ্রানী দত্তের কন‌্যা রাজনন্দিনী পাল।

এ সিনেমায় যখন অভিনয় করেন রাজনন্দিনী তখন তার টিনএজ বয়স। কিন্তু এই সময়ে টলিপাড়ার বিভিন্ন পার্টিতে প্রায়ই একসঙ্গে দেখা গেছে সৃজিত-রাজনন্দিনীকে। তারপর গুঞ্জন চাউর হয়, তারা ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে জড়িয়েছেন। এ নিয়ে ফিসফাস কম হয়নি এই জুটিকে কেন্দ্র করে। যদিও বিষয়টি নিয়ে খোলামেলা কথা বলতে দেখা গেছে রাজনন্দিনীকে।

সৃজিতেরও বিয়ে হয়ে গেল-এমন প্রশ্নে আনন্দবাজার অনলাইনকে রাজনন্দিনী বলেন, জানি, কোন কথা নতুন করে বলতে চাইছেন। সৃজিত মুখোপাধ্যায় আর আমাকে নিয়ে যে বিতর্কের সূত্রপাত সেটা কিন্তু সংবাদমাধ্যমেরই তৈরি। আমাকে জড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, এটাই আমার বলার। বয়সে সৃজিত আমার পিতৃসম। তাকে নিয়ে এর বেশি আর কিছু বলার নেই।

প্রথম কাজেই ‘সৃজিত’ সম্বোধন করছেন এমন প্রশ্নে এ নায়িকা বলেন, আমি কিন্তু তাকে ‘আঙ্কেল’ বলে ডেকেছিলাম। এতে পরিচালক ক্ষুণ্ণ হয়েছিলেন। শুধু সৃজিত বলে ডাকার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। আমি নিজে থেকে কিছুই করিনি।

সৃজিত অনেক ছবি পরিচালনা করছেন, আপনি কোন ছবিতে? জবাবে রাজনন্দিনী বলেন, দেখুন, সৃজিত আমাকে তার ‘এক যে ছিল রাজা’ ছবির জন্য ডেকেছিলেন। যেখানে যীশু সেনগুপ্তের বিপরীতে ‘বাচ্চা বৌ’ দরকার ছিল। আমি তখন খুবই ছোটো। এখন তো আর সেই বয়সে নেই! তবে আমার উপযুক্ত চরিত্র পেলে সৃজিত আবার ডাকবেন, এটা আমি জানি।

উল্লেখ্য, ৬১তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সৃজিত পরিচালিত ‘জাতিস্মর’ ছবিটি চারটি পুরস্কার জিতে নেয়। ৬২তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অনুষ্ঠানে তার পরিচালিত ‘চতুষ্কোণ’ সিনেমাটির জন্য তিনি সেরা পরিচালক এবং সেরা চিত্রনাট্য বিভাগে পুরস্কার জিতে নেন। তার পরিচালিত রাজকাহিনী চলচ্চিত্রটি হিন্দিতে ‘বেগম জান’ শিরোনামে পুনঃনির্মিত হয়েছে যার নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বিদ্যা বালান।

Check Also

সিলেটে রাতভর বৃষ্টি, বেড়েছে নদ-নদীর পানি

সিলেটে গতকাল মঙ্গলবার রাতভর ভারী বৃষ্টি হয়েছে। তবে আজ বুধবার সকালের দিকে আকাশে উঁকি দিয়েছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.