ক্রিকেটে আর ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটি থাকছে না

সাকিব, মুশফিকদের আর ‘ব্যাটসম্যান’ বলা যাবে না। বলতে হবে ‘ব্যাটার’। অর্থাৎ ক্রিকেটে বহুল প্রচলিত ‘ব্যাটসম্যান’ শব্দটি আর থাকছে না।

শব্দটি মুছে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্রিকেটের আইনপ্রণেতা মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)।

গত বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে এমসিসি।

এমন সিদ্ধান্তের নেপথ্যে একমাত্র কারণ ক্রিকেটে নারীদের অগ্রগামিতা। এর আগে এমসিসি নারী ক্রিকেটারদের বেলায় ‘ব্যাটসম্যান’ বলার নিয়ম করলেও তাদের ক্ষেত্রে ‘ব্যাটার’ শব্দটি ব্যবহার হয়ে আসছে।

তাই এবার এক শব্দে গিয়ে থামতে চাইছে এমসিসি। এখন থেকে ছেলে ও মেয়ে দুই ধরনের ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা হবে ‘ব্যাটার’ শব্দটি। ইতোমধ্যে নিজেদের ডিজিটাল প্ল্যাটফরমে এর ব্যবহার শুরু করেছে আইসিসি।

বিবৃতিতে বুধবার এমসিসি জানায়, ‘খেলাটির প্রতি এমসিসির বৈশ্বিক দায়িত্ববোধের অপরিহার্য অংশ হিসেবেই এ পরিবর্তন আনা হয়েছে।’

এ বিষয়ে এমসিসির ক্রিকেট ও অপারেশন্সবিষয়ক সহকারী সচিব জেমি কক্স বলেছেন, ‘এমসিসি বিশ্বাস করে, ক্রিকেট খেলাটি সবার জন্যই এবং আধুনিক যুগে খেলাটির বদলে যাওয়া চিত্রকেই তুলে ধরছে এ পদক্ষেপ। ‘ব্যাটার’ শব্দটি খেলাটার সঙ্গে সম্পৃক্ত অনেকে ইতোমধ্যে এটি গ্রহণ করে নিয়েছে।’

তথ্যসূত্র: রয়টার্স

মাঠে গড়ায়নি একটি বলও, ২৭ লাখ রুপির বিরিয়ানি খেয়েছে পাকিস্তানের পুলিশ

১৮ বছর পর পাকিস্তান সফরে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড দল। সফরকে ঘিরে বিপুল আয়োজন করেছিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

আর নিরাপত্তার অযুহাত দেখিয়ে একটি ম্যাচও না খেলে ফিরে এসেছে কিউইরা। এতে পিসিবির বিপুল পরিমাণ আর্থিক লোকসান হয়েছে।

পাক গণমাধ্যমের খবর, সিরিজ বাতিল হওয়ায় দেড় মিলিয়ন ডলার বা ১৩ কোটি টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছে পিসিবি।

একটি বলও যেখানে মাঠে গড়ায়নি তো এতো বড় অংকের খরচ কি হলো – সে প্রশ্নও উঠেছে।

তা খতিয়ে দেখতে যে তথ্য পেল পিসিবি, কিউই সিরিজে মোটা অঙ্কের অর্থ খরচ হয়েছে বিরিয়ানির পেছনে! সফর সফল করতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছিল পিসিবি। বিপুল পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন করেছিল তারা। সিরিজ বাতিল হওয়ার আগ পর্যন্ত মোট ৮ দিন এসব পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন। আর সেসব পুলিশদের বিরিয়ানি খাওয়াতেই নাকি পিসিবির খরচ হয়েছে ২৭ লাখ রুপি!

এতো অর্থ খরচ করেও পিসিবি চাইছিল নিশ্চিন্ত মনে সিরিজ খেলে যাক সফরকারীরা। কিন্তু একটি বলও মাঠে না গড়ানোয় পুলিশের বিরিয়ানির পেছনে খরচ হওয়া এই অর্থই এখন বেশ ভারী লাগছে পিসিবির কাছে।

কারণ পুলিশকে এত বিরিয়ানি খাইয়েও নিউজিল্যান্ড দলকে বোঝানো গেল না যে, তারা নিরাপদ।

ক্রিকেটারদের নিরাপত্তার জন্য পাঁচজন এসপি ও এএসপিসহ পাঁচশরও বেশি পুলিশ সদস্য মোতায়েন করেছিল পিসিবি। প্রতিদিন তাদের দুই বেলা বিরিয়ানি খাওয়ানো হয়েছে।

তথ্যসূত্র: ক্রিক ট্র্যাকার

Check Also

নেইমারের চাওয়া, ব্রাজিলের ১০ নম্বর উঠুক রদ্রিগোর গায়ে

কাতার বিশ্বকাপে ব্রাজিলের ফরোয়ার্ড লাইনটা একটু ভেবে দেখুন—নেইমারের সঙ্গে রিয়াল মাদ্রিদের জুটি রদ্রিগো ও ভিনিসিয়ুস …

Leave a Reply

Your email address will not be published.