Breaking News

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে বাধা দেয়ায় ঘুষি মেরে স্বামীর দাঁত ভেঙে দিয়েছেন স্ত্রী!

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে বাধা দেয়ায় ঘুষি মেরে দাঁত ভেঙে দিয়েছেন স্ত্রী, এমন অভিযোগে ভারতের শিমলায় মামলা দায়ের করেছেন এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় স্ত্রীর উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্বামী। খবর ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনের।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) এ ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) শিমলার থিওগ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ওই ব্যক্তি পুলিশকে জানান, তার স্ত্রী মোবাইলে আসক্ত। ক্রমাগত হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট করতে থাকেন। বৃহস্পতিবার স্ত্রী যখন হোয়াটসঅ্যাপে মগ্ন ছিলেন, তখন তিনি বাধা দিতে যান। এতেই স্ত্রী ক্ষিপ্ত হয় এবং ঘুষি মেরে তার দাঁত ভেঙে দেন।

এছাড়াও অভিযোগ করেন, স্বামীকে লাঠি দিয়েও মারধর করেছে ওই স্ত্রী। এতে হাসপাতালে নিতে হয় ওই ব্যক্তিকে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সোজা থানায় হাজির হন তিনি। অভিযোগ দায়ের করেন স্ত্রীর বিরুদ্ধে। স্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা নথিভুক্ত করে থিয়োগ থানার পুলিশ।

শিমলার পুলিশ সুপার মণিকা জানান, স্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। কেন ওই মহিলা এমন কাজ করলেন তা খতিয়ে দেখা হবে। মহিলাকে খুব শীঘ্রই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। অভিযোগকারী স্বামীকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানান তিনি।

ছেলে-মেয়ের বিয়ের আগেই পাত্রের মাকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন পাত্রীর বাবা!
প্রতিটি মানুষের জীবনে বিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। জন্ম ও মৃত্যুর পরই মানুষের জীবনে বিয়ে অনেক বড় একটি ঘটনা। যারা নিজ ইচ্ছায় বিয়ে করেন না তাদের ব্যাপার আলাদা। তবে অধিকাংশ মানুষেরই কিন্তু বিয়ে নিয়ে অনেক স্বপ্ন থাকে।

নতুন খবর হচ্ছে, ছেলে-মেয়ের বিয়ের আগে পাত্রের মাকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন পাত্রীর বাবা। এটা কোনো গল্প নয়, বরং বাস্তব ঘটনা। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের সুরাটে। খবর ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের। খবরে বলা হয়, ছেলে-মেয়েদের বিয়ের দিন পাকা করতে যেদিন দুই পরিবার সাক্ষাৎ করলো ঘটনার সূত্রপাত তখনই।

প্রেম এতটাই গভীর যে ছেলেমেয়েদের বিয়ের আগেই পাত্রের মা, পাত্রীর বাবাকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন! জানা যায়, সুরাটে এক কাপড় ব্যবসায়ীর কন্যা নভসারি এলাকার এক যুবকের প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছিলেন। এরপর পরিবারের মত নিয়ে তারা বিয়ে করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেন।

চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি পাকাপাকিভাবে ঠিক হয় বিয়ের দিনক্ষণ। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বিয়েতে মত দিলেও মাঝেমধ্যেই এই বিয়েতে আপত্তি জানাচ্ছিলেন মেয়ের বাবা। কিন্তু পাত্রের বাড়ি থেকে জোর দেয়াতেই বিয়ে এক প্রকার পাকা হয়।

এরপর হঠাৎই ১০ জানুয়ারি থেকে মেয়ের বাবা ও ছেলের মায়ের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়, তারা লাপাত্তা। খোঁজা শুরু হয় গোটা এলাকা জুড়ে। দুই পরিবারই থানায় নিখোঁজ ডাইরি করে একইদিনে।

তবে স্ত্রী কার সঙ্গে পালিয়েছেন তা আন্দাজ করতে পেরেছিলেন পাত্রের বাবা। তিনি পুলিশকে জানান, সুরাটের ওই ব্যবসায়ীর (হবু বউমার বাবা) সঙ্গেই পালিয়েছেন তার স্ত্রী। ১০ জানুয়ারি বাজার করতে যাচ্ছে বলে বেরিয়েছিলেন তিনি। এরপর আর ফেরেনি। ফোনও সুইচ অফ করে দেন।

পুলিশ জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উঠে এসেছে যে সুরাটে এসে মেয়ের বাবার সঙ্গে দেখা করেন ছেলের মা। এরপর বাইকে চড়ে ৪৮ নং জাতীয় সড়ক ধরে কাদোদারা এলাকায় পৌঁছান তারা।

সেখান থেকে মেয়ের বাবা তার বন্ধু রাজুভাইকে বাইক নিয়ে বাড়িতে রেখে আসতে বলেন। এরপর তারা বাসে উঠে পালিয়ে যান। এখনও পর্যন্ত কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি তাদের।

Check Also

ঈদুল আজহা কবে, জানা যাবে কাল

দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা কবে উদ্‌যাপিত হবে, তা জানা যাবে কাল বৃহস্পতিবার। ঈদুল আজহার তারিখ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.