যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী’কে ঘু’মের মধ্যে গরম তেল দিয়ে ঝ’লসে দিল স্বামী

যৌতুক না পেয়ে গার্মেন্টস কর্মী স্বর্ণা আক্তার (৩০) এর শরীরে গরম তেল ঢেলে দিয়ে ঝলসে দিল পাষন্ড স্বামী মো. সজনু মিয়া (৩৫)। গত শুক্রবার গভীর রাতে ঢাকার সাভারের জিরানি বাজার এলাকা এ ঘটনা ঘটে। মূমুর্ষ অবস্থায় স্বর্ণা আক্তারকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের পিংনা গ্রামের চাঁন মিয়ার পুত্রের সঙ্গে কাজীপুর উপজেলার রাজনাথপুর গ্রামের চানু মিয়ার কন্যা স্বর্ণা আক্তারের প্রায় ১০ বছর পূর্বে বিয়ে হয়।

তাদের পরিবারে দশ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবীতে স্বামী সজনু মিয়া স্বর্ণাকে শারীরিক এবং মানষিক ভাবে নির্যাতন করতো।

সজনু মিয়া উপজেলার পিংনা বাজারে মনোহারী দোকানের ব্যবসা করে। স্বামী সজনু মিয়া স্ত্রীকে দেখতে সাভারের জিরানি বাজার এলাকার ভাড়া বাসায় যায়। রাতে স্ত্রীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে স্বামী সজনু তার শরীরে গরম তেল ঢেলে দিয়ে ঝলসে দেয়।

স্বর্ণার মা শিরিনা বেগম জানান, যৌতুকের দাবিতে স্বর্ণাকে প্রায়ই নির্যাতন করতো স্বামী সজনু। শুক্রবার রাতে তারা স্বাভাবিক ভাবে ঘুমাতে যায়। তাদের মাঝে এদিনও পারিবারিক কলহে কথা কাটাকাটি হয়। ভোররাতে স্বামী সজনু মিয়া গরম তেল ঢেলে দিয়ে স্বর্ণার শরীরে।

এতে তার মেয়ের শরীর, বুক, হাত ও পা ঝলসে গেছে। ঘটনার পরেই ভাড়াটিয়া বাসার মালিক স্বর্ণাকে হাসপাতালে চিকিৎসা না করিয়ে স্বর্ণাকে অ্যাম্বুলেন্সে পিংনা এলাকার বাড়িতে পৌছে দেয়।

আরো পড়ুন : প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় যুবক আটক

পটুয়াখালীর বাউফলে প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়েছেন এনামুল হক নামে এক যুবক। স্থানীয়রা এনামুলকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশের কাছে তুলে দিয়েছেন। বাউফল সদর ইউনিয়নের পশ্চিম বিলবিলাস গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই প্রবাসীর মা। অভিযোগটি পুলিশ সাধারণ ডায়েরিভুক্ত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ওই নারী স্বামী বিদেশে থাকার সুবাদে উপজেলার মদনপুরা ইউনিয়নের চন্দ্রপাড়া গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে দুই সন্তানের জনক এনামুল হকের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। দুই বছর যাবত চলছে তাদের এ সম্পর্ক। এনামুল যশোর সেনানিবাসের ১০ ইস্ট বেঙ্গলের একজন সেনাসদস্য।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই সেনাসদস্য তার পরকীয়া প্রেমিকার বাড়িতে যায়। এ সময় ওই নারীর শাশুড়ি বাড়িতে ছিলেন না। একপর্যায়ে বাড়ির লোকজন তাদের দুজনকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন।

প্রবাসীর মা বলেন, এ বিষয়ে আমি থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছি।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, সেনাসদস্য এনামুলকে শুক্রবার সেনাবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেনাবাহিনী তাদের নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এ ঘটনায় থানায় যে সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে সেটির তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Check Also

কলেজ অধ্যক্ষকে নেতার চড় মারার মুহূর্ত ধরা পড়ল ক্যামেরায়

কলেজ অধ্যক্ষকে চড় মারছিলেন এক নেতা। একবার নয়, একাধিকবার। আর সেই মুহূর্তটি ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.