লম্বা হলো লাশের লাইন, করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত আরও বাড়ল

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট দেশে করোনায় মারা গেলেন ২৭ হাজার ৪৭০ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১ হাজার ৩১০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এ পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৫৩ হাজার ৮৭৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় ২৯ হাজার ১৮৬টি নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ৪.৪৯ শতাংশ।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এদিকে, চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে আবার বেড়েছে শনাক্তের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা। মঙ্গলবার সকালে পাওয়া ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৩২১ জন।

অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৩০০। একই সময়ে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৭০ হাজার ১৫৬ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ৩৪ হাজারের বেশি।

এই মহামারিতে সমগ্র বিশ্বে এখন পর্যন্ত ২৩ কোটি ৩০ লাখ ৭০ হাজার ৬৮৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৪৭ লাখ ৬৯ হাজার ২৯৫ জন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে দৈনিক মৃত্যুতে সবার ওপরে রয়েছে রাশিয়া।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৮০ হাজার ৫১৯ জন এবং মারা গেছেন ৬৮৫ জন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪ কোটি ৩৯ লাখ ৪১ হাজার ১৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৭ লাখ ৯ হাজার ১১২ জন মারা গেছেন। দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন ৭৭৯ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২২ হাজার ২৩৬ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৭৪ লাখ ৪৩ হাজার ১৪৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৪ হাজার ৬৭৯ জনের।বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জোরকদমে চলছে টিকাদান। এরই মধ্যে বেশিরভাগ দেশ তাদের প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার বেশিরভাগকে টিকা দিয়ে ফেলেছে। টিকা দেয়ার হার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শিথিল করা হয়েছে করোনা বিধিনিষেধ। এরই মধ্যে বেশিরভাগ দেশ স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু করেছে। তুলে নেয়া হয়েছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টাইন এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টিকা নেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

Check Also

সিলেটে পানি কমছে, তবে ছড়িয়ে পড়েছে দুর্গন্ধ

সিলেট নগর ও এর আশপাশের এলাকায় বন্যার পানি অনেকটাই কমেছে। তবে এখন রাস্তাঘাটে জমে থাকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.