Breaking News

ইউটিউব দেখে কবিরাজি করতো তিনি, ফোনে নারীদের অশ্লীল ভিডিও

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জের ইমামবাড়ি বাজার থেকে আহাদুর রহমান নামের এক ভণ্ড কবিরাজকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃত আহাদুর রহমান বানিয়াচং উপজেলার কুর্শা খাগাউড়া গ্রামের শোল্লুক মিয়ার পুত্র।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ইমামবাড়ি বাজারে ওই ভণ্ড কবিরাজের আস্তানা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। কিন্তু তার দুই সহযোগী র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় একটি কম্পিউটার, একটি মেমোরি কার্ড, দুটি মোবাইল ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব শায়েস্তাগঞ্জ ক্যাম্পের লে. কমান্ডার মোহাম্মদ নাহিদ হাসান গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বিডি২৪লাইভকে জানান, ভণ্ড কবিরাজ আহাদুর রহমান পড়াশোনা করেছেন ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত।

কবিরাজি করার আগে হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের বিভিন্ন হোটেল-রেস্টুরেন্টে কাজ করতেন তিনি। গত দুই বছর যাবত তাবিজ, পানি পড়া, সুতা পড়া ও গাছের শিকড় দিয়ে কবিরাজি জগতে প্রবেশ করেন।

নারীদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে চিকিৎসার নামে অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে মোটা অংকের টাকা আদায় করতেন তিনি। এছাড়া অশ্লীল ভিডিওগুলো ওই নারীদের স্বামী ও আত্মীয়-স্বজনদের ইমো ও মেসেঞ্জারে প্রেরণ করে মোটা অংকের টাকা দাবি করতেন।

তিনি এ পর্যন্ত ৩০-৪০ জন নারীর অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ধারণ করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

আরো পড়ুন : গাঁজা যে মাদক, সেটাই জানতাম না: অনন্যা

বলিউড অভিনেতা চাঙ্কি পান্ডের মেয়ে অভিনেত্রী অনন্যা পান্ডে। ‘বলিউড বাদশাহ’ শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খানের মাদক মামলায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ভারতের নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। অনন্যা পান্ডের সাথে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে মাদক নিয়ে কথা হতো শাহরুখ পুত্র আরিয়ানের! এমন অভিযোগের সূত্র ধরেই বৃহস্পতিবার এনসিবির জেরার মুখে পড়েন অনন্যা।

এনসিবির দাবি, আরিয়ান খানের সঙ্গে অনন্যার মাদক নিয়ে কথোপকথনের কিছু আলাপ পেয়েছে তারা। যেখানে হোয়াটসঅ্যাপে, অনন্যা পান্ডের কাছে আরিয়ান খান চেয়েছিলেন নেশাজাতীয় কিছু দেয়া যাবে কি? অনন্যা জবাব দিয়েছিলেন ‘আই উইল রেইজ’, যার ভাবার্থ দাঁড়ায়, বিষয়টি দেখছি। এনসিবির জেরায় অনন্যা দাবি করেন, নিছকই মজা করে কথাগুলো বলেছিলেন তিনি, সেটিও এক বছর আগে। সেইসঙ্গে যেকোনো প্রকার অবৈধ মাদক আদানপ্রদানের অভিযোগও অস্বীকার করেছিলেন তিনি।

শুক্রবার আবারও জেরার মুখোমুখি এই উঠতি অভিনেত্রী। জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) কার্যালয়ে আসেন অনন্যা পান্ডে। এসময় তার সঙ্গে বাবা চাঙ্কি পান্ডে আসলেও তাকে বাইরে অপেক্ষা করতে হয়। টানা চার ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এদিন সন্ধ্যায় দপ্তর ছাড়েন অনন্যা।

আরিয়ানকে গাঁজা সরবরাহের কথা অস্বীকার করে অনন্যা এনসিবিকে জানিয়েছেন, কখনওই কোনও প্রকার মাদক সেবন করেননি তিনি। আরিয়ানের সাথে গাঁজা সরবরাহের কথা কেন চ্যাটে লিখেছিলেন, এ প্রসঙ্গে অনন্যার দাবি, কেবল সিগারেট নিয়ে কথা হয়েছিল, গাঁজা নয়। আর গাঁজা যে কোনো প্রকার মাদক, সে কথাই জানতাম না!

Check Also

কলেজ অধ্যক্ষকে নেতার চড় মারার মুহূর্ত ধরা পড়ল ক্যামেরায়

কলেজ অধ্যক্ষকে চড় মারছিলেন এক নেতা। একবার নয়, একাধিকবার। আর সেই মুহূর্তটি ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.