সৈয়দপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই, আহত ১৫

নীলফামারীর সৈয়দপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চক্ষু হাসপাতালের ড্রাইভারসহ ২ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন।

 

 

 

রবিবার (৩১ অক্টোবর) বিকেলে সৈয়দপুর-দিনাজপুর বাইপাস সড়কের মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের সামনের এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালক রংপুর বিভাগীয় শহরের পার্কপাড়া এলাকার মমতাজ আলীর ছেলে তহিদুল ইসলাম (৪০) ও দিনাজপুর জেলার কাহারোল উপজেলার মল্লিকপাড়া এলাকার মৃত ওমর আলীর ছেলে মঞ্জুর আলী (৫৯)।

 

স্থানীয়রা জানান, ঠাকুরগাঁও থেকে বগুড়া যাচ্ছিলো ফাহিম এন্টারপ্রাইজ (ঢাকা মেট্রো জ-১৪-০১৯৪)। ঘটনাস্থলে রাস্তা পারাপারের সময় বাসটি মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালক তহিদুল ইসলামকে চাপা দিলে মারা যায় সে। এ সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে বাসটি সড়কের নিচে ধানক্ষেতে পড়ে যায়। এতে বাসের ভেতরে থাকা যাত্রী মঞ্জুর আলী মারা যান।

 

 

 

মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের ব্যবস্থাপক আব্দুল্লাহ আল ফারুক জানান, মহিদুল তিন বছর ধরে মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালাচ্ছেন। গতমাসে এখানে যোগদান করে। ঘটনার সময় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় মারা যায় সে।

 

সৈয়দপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খায়রুল আলম জানান, দুর্ঘটনায় জড়িত বাসের চালক পালিয়ে গেছে। লাশ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। আহতদের সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতাল ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

 

আরও পড়ুন:

কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কা সিএনজিতে, নিহত-২, আহত-৪

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভায় নবনির্মিত বাইপাস সড়কে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় সিএনজি অটো রিকশার দুই আরোহী নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৪ জন। রবিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুর আড়াইটায় বসুরহাট বাইপাস সড়কের রামদী এলাকায় এ সড়ক দুঘটনা ঘটে। কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

 

পুলিশ জানায়, কাভার্ড ভ্যানসহ চালককে আটক করা করা হয়েছে। কাভার্ডভ্যান চালক মো. মাছুম ভুইয়া (২৯) কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মো. ইউছুপের ছেলে।

ঘটনাস্থলে নিহতরা হলেন, উপজেলার শাহজাদপুর গ্রামের বগালা মিস্ত্রি বাড়ির মৃত মতিলাল সূত্রধরের ছেলে নয়ন সূত্রধর (৪৫) ও একই বাড়ির কান্তি কুমার সূত্রধরের মেয়ে চন্দনা রানী সূত্রধর (২৫)। আহতরা হলো, নিহত চন্দনার ১৮ মাস বয়সের শিশু কন্যা অর্পনা সূত্রধর, তার ভাই বিধান সূত্রধর (১৯), একটি বাড়ির পরিমল সূত্রধরের ছেলে শিমুল সূত্রধর (১৭) ও সিএনজি চালক (৩৫)। এরমধ্যে গুরুতর আহত বিধানকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে এবং শিমুলকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকায় নেওয়া হয়েছে।

 

 

 

দুর্ঘটনায় নিহত নয়ন সূত্রধরের ভাই জয়ন্ত্র সূত্রধর জানান, তারা সবাই সিএনজি যোগে তার চাচাতো বোন নিহত চন্দনা রানী সূত্রধরের স্বামীর বাড়ী চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ থেকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় শাহজাদপুর গ্রামে নিজ বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে বসুরহাট বাইপাস সড়ক অতিক্রম করার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

 

ওসি বলেন, দুর্ঘটনাস্থল থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখারী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

সুপ্রিম কোর্টের ১২ বিচারপতি করোনায় আক্রান্ত: প্রধান বিচারপতি

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের ১২ জন বিচারপতি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আজ সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.