Breaking News

নতুন নাম নিয়ে বি’পদে ফেসবুক, কেউ চায় অর্থ, কেউ করে মা’মলা

ফেসবুকের প্রাতিষ্ঠানিক নাম বদলে করা হয়েছে মেটা। সেটা গত ২৮ অক্টোবরের খবর। এদিকে আরেক মার্কিন প্রতিষ্ঠান দাবি করছে, ফেসবুক সে নাম নিতে পারে না। কারণ, বহু আগেই ‘মেটা কোম্পানি’ নামে তারা নিবন্ধিত। ফেসবুক সে নাম এবং তাদের ‘জীবিকা’ চুরি করেছে।

মেটা কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা নেট স্কুলিক এক বিবৃতিতে দাবি করেছেন, তাঁদের প্রতিষ্ঠান কিনতে ব্যর্থ হওয়ায় ফেসবুক এখন গণমাধ্যমের সহায়তায় সেটি ‘মাটিচাপা’ দেওয়ার চেষ্টা করছে। স্কুলিক আরও বলেন,

‘এমন কর্মকাণ্ডে আমাদের অবাক হওয়া উচিত নয়। বিশেষ করে এমন প্রতিষ্ঠান, যেটি বলে এক, আর করে আরেক।’এখন ফেসবুকের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মেটা কোম্পানি। মেটা (ফেসবুক) অবশ্য এমন দাবির পর এ নিয়ে এখনো মুখ খোলেনি।

স্কুলিকের বিবৃতিতে আরও লেখা ছিল, ‘ফেসবুক এবং এর পরিচালনার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা প্রতারক ও প্রতারণার মানসিকতা নিয়ে কাজ করছেন। সেটা কেবল আমাদের সঙ্গেই নয়, বরং পুরো মানবজাতির বিপক্ষে।

এদিকে তীব্র সমালোচনা এড়াতেই ফেসবুকের নাম পরিবর্তন বলে মনে করেন বিশ্লেষকেরা। নতুন নাম গ্রহণের ঘোষণাও এমন সময়ে এসেছে, সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে দেশে দেশে আইনপ্রণেতারা যখন ফেসবুকের কর্মকাণ্ড নিয়ে কড়া সমালোচনা করছেন।

মার্ক জাকারবার্গ অবশ্য এমন ধারণা অমূলক বলে দাবি করেন। বরং ‘ফেসবুক’ নামটিতে তাঁদের প্রতিষ্ঠানের পুরো কর্মকাণ্ড এখন আর ঠিকঠাক প্রকাশিত হচ্ছে না, সেটি তাঁদের প্রতিষ্ঠানের কেবলই একটি পণ্য।

বলেন, ‘সময়ের সঙ্গে আমরা নিজেদের মেটাভার্স প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।স্কুলিকের দাবি, ‘তিন মাস ধরে ফেসবুকের আইনজীবীরা তাঁদের কাছে আমাদের নাম বিক্রির কথা বলছেন। আমরা বেশ কয়েকটি কারণে তা ফিরিয়ে দিয়েছে।

প্রথমত, যে মূল্য দিতে চায় তাতে আমাদের নাম পরিবর্তনের পুরো খরচ উঠবে না। তা ছাড়া আমরা বারবার সেই গ্রাহকের নাম ও উদ্দেশ্য জানতে চেয়েছি, যেটা তাঁরা প্রকাশ করতে রাজি হননি।’

অন্তত দুটি আইনি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠাতা স্কুলিকের মেটা কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এক পক্ষ থেকে ট্রেডমার্ক বিক্রির জন্য চাপ এসেছে। আর ইউরোপের অন্য পক্ষটি নিবন্ধিত ডোমেইন নাম বিক্রির জন্য বারংবার বলতে থাকে।

মেটা কোম্পানির নামে ট্রেডমার্ক নিবন্ধনের একটি আবেদন করা হয় ২০১৬ সালে, যেটার মালিকের ঠিকানা শিকাগো। তবে ২০১৫ সালে মেটা নামের জন্য আরেকটি ট্রেডমার্কের আবেদন করা হয়,

যেটার মালিক মার্ক জাকারবার্গ ও তাঁর স্ত্রী প্রিসিলা চ্যানের গড়া দাতব্য সংস্থা চ্যান জাকারবার্গ ইনিশিয়েটিভ।এদিকে ‘মেটা পিসি’ নামের আরেক মার্কিন প্রতিষ্ঠানও ট্রেডমার্কের জন্য আবেদন করে।

সেটির কাজ কম্পিউটার সামগ্রী বিক্রি করা। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, জাকারবার্গের মেটা যদি তাদের ২ কোটি ডলার দেয় তবে তারা ট্রেডমার্কের আবেদন তুলে নেবে। তবে টুইটারে মজা করতে ছাড়েননি প্রতিষ্ঠানটির সহপ্রতিষ্ঠাতারা।

Check Also

বন্যাদুর্গত মানুষের সহায়তায় ২ কোটি ২৮ লাখ টাকা দিল যুক্তরাষ্ট্র

দেশের বন্যাদুর্গত এলাকার মানুষের সহায়তা হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) জরুরিভাবে ২ কোটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.