Breaking News

মি’মকে অভিনন্দন জানিয়ে যা বললেন ফারিয়া

ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম বুধবার বাগদান সেরেছেন তার দীর্ঘদিনের প্রেমিক সনি পোদ্দারের সাথে। গতকাল ১০ নভেম্বর ছিল তার জন্মদিন। জন্মদিনেই ভালোবাসার মানুষের সঙ্গে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন মিম। এদিকে চলতি বছরই বাগদান সেরেছেন মডেল-অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিন। বাগদানের পর সহশিল্পীরা মিমকে শুভকামনা জানাচ্ছেন। ফারিয়াও মিমকে শুভকামনা জানিয়েছেন। ফেসবুকে ফারিয়া লিখেছেন,

লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় আমার ব্যাচমেট মিমকে (বিদ্যা সিনহা মিম) অভিনন্দন। আমরা একই বছরে লাক্স চ্যানেল প্রতিযোগিতা থেকে বের হয়েছি। একই বছর আমাদের বাগদান হয়েছে দেখে ভালো লাগছে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার আমার ৯ নভেম্বর জন্মদিন, আর ওর জন্মদিন ১০ নভেম্বর। আমরা দুইজনেই বৃশ্চিক রাশি।

অনেক অনেক দোয়া থাকলো মিমের জন্য। আগে অনেক ঝগড়া করেছি ছোটবেলায়। এখন আর এসব মনেও নাই। ভালো থাকুক ভালোবাসার মানুষগুলো…

তারামন বিবির জীবনী নিয়ে সিনেমা নির্মাণে জটিলতা। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য বীর প্রতীক খেতাব পেয়েছিলেন তারামন বিবি। এবার তার জীবনী নিয়েই নির্মিত হচ্ছে একাধিক সিনেমা। তবে সিনেমার কাজ শুরু হওয়ার আগেই তৈরি হয়েছে জটিলতা। সম্প্রতি তারামন ও মুক্তিযুদ্ধে নারীদের ভূমিকা নিয়ে সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দেয় আরশীনগর মিডিয়া। সিনেমাটি নির্মাণ করবেন আমিনুর ইসলাম লিটন। উপদেষ্টা পরিচালক হিসেবে থাকবেন নাসির উদ্দিন ইউসুফ।

নতুন এ সিনেমার ঘোষণা আসার পর শাহরাজ হোসেন আমীরের পক্ষে ‘তারামন’ সিনেমা নিয়ে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আরিফ হোসাইন তালুকদার। নোটিশে বলা হয়, বীর প্রতীক তারামন বিবি তার আত্মজীবনী প্রকাশ ও প্রচারের লক্ষ্যে একটি চুক্তি সম্পন্ন করেন।

২০১৩ সালে ২৫ জুলাই শাহরাজ হোসেন আমীরের সঙ্গে এ চুক্তিটি করা হয়। চুক্তি অনুযায়ী চলচ্চিত্রের নাম ‘একাত্তরের তারামন’। যার স্বত্বাধিকারী শাহরাজ হোসেন আমীর। পরবর্তীতে তারামন বিবিকে নিয়ে অন্য কেউ সিনেমা নির্মাণ করলে তা আইন পরিপন্থী হবে। তাই তারামন বিবিকে নিয়ে চলচ্চিত্র, নাটক, টেলিফিল্ম নির্মাণ করা থেকে সংশ্লিষ্টদের বিরত থাকার অনুরোধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে আমিনুর ইসলাম লিটনের জানান, আমি লোক মারফত নোটিশের ব্যাপারে জেনেছি, কিন্তু নোটিশ হাতে পাইনি। আমি যতটুকু জানি ‘একাত্তরের তারামন’ সিনেমা আর আমাদের ‘তারামন’ সিনেমার গল্পের প্লট আলাদা। ওই সিনেমাটি ছিল তারামান বিবির আত্মজীবনী। কিন্তু আমাদের সিনেমাতে মুক্তিযুদ্ধে নাম না জানা, অজানা বীর নারীদের অবদান তুলে ধরা হবে। এখানে শুধু তারামন বিবিই না, আরও অনেক নারী মুক্তিযোদ্ধার গল্প থাকবে। গল্পের প্লট আলাদা হলে নির্মাণে কোনো জটিলতা থাকার কথা না।

‘একাত্তরের তারামন’ সিনেমার জন্য চুক্তি করা হয়েছিল প্রায় দশ বছর আগে। তখন তারামন বিবি জীবিত ছিলেন। তার ইচ্ছা ছিল সিনেমাটি দেখে যাওয়ার। কিন্তু এখন তিনি জীবিত নেই। সে ক্ষেত্রে আশা করি কোনো জটিলতা হবে না। শাহরাজ হোসেন আমীর জানান, ‘তারামন’ সিনেমার সঙ্গে জড়িতরা এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে অনুমতি নেননি।

Check Also

সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার বাবা

ঘটনাটা মাত্র সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার। এই পাঁচ ঘণ্টার ঘটনা লিখতেই যখন এত শব্দ লাগল, তাহলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.