বাঁধ ভেঙে চলনবিল অঞ্চলের ৮ উপজেলা প্লাবিত

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের রাউতারা সুইচগেট সংলগ্ন রিং বাঁধ ভেঙে শাহজাদপুরসহ চলনবিলের পাবনা, নাটোর ও সিরাজগঞ্জের ৮ উপজেলার প্রায় ৪৫ হাজার হেক্টর ফসলের মাঠ বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে।

শুক্রবার (১৭ জুন) রাত ১০টার দিকে অতিবর্ষণ ও উজানের ঢলের চাপে শনিবার বিকেলে বাঁধটি ভেঙে যায়।

এ অঞ্চলের ফসল রক্ষার জন্য দুই বছর আগে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড ২ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে অস্থায়ী এ বাঁধটি নির্মাণ করে। গত ১৫ দিন আগে এ অঞ্চলের সব ফসলের মাঠের ধান কাটা শেষ হয়ে যাওয়ায় বাঁধটি কার্যত পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে রাউতারা গ্রামের ইউপি সদস্য টুলি বেগম জানান, উজানের ঢল ও অতিবর্ষণের কারণে গত কয়েকদিন ধরে শাহজাদপুর উপজেলার করতোয়া, বড়াল, হুরাসাগরসহ সব নদ-নদীতে বন্যার পানি হু হু করে বাড়ছে। ফলে অস্থায়ী এ বাঁধটি প্রবল পানির চাপে দুর্বল হয়ে শনিবার বিকেলে ভেঙে যায়। এতে শাহজাদপুরসহ চলনবিলের পাবনা, নাটোর ও সিরাজগঞ্জের ৮ উপজেলার প্রায় ৪৫ হাজার হেক্টর ফসলের মাঠ বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়া এ অঞ্চলের ৩ হাজার হেক্টর গো-চারণ ভূমি এ বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় কৃষকরা তাদের গবাদি পশু বাড়ি অথবা উঁচু স্থানে সরিয়ে নিয়েছে। ঘাসের জমি ডুবে যাওয়ায় গো-খাদ্যের সঙ্কট সৃষ্টি হবে। এছাড়া, তিল, কাউন, বাদাম, ভুট্টা, শাক-শব্জি ও নেপিয়ার ঘাসের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গ্রামের কাঁচা রাস্তা-ঘাট বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় চলাচলে চরম দুর্ভোগ বেড়েছে।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম বলেন, বাঁধটি ফসল রক্ষার জন্য নির্মাণ করা হয়েছিল। ফসল উঠে যাওয়ায় বাঁধটি ভেঙে গেলেও কৃষকের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি।

Check Also

রুহি তখনো জানে না বাবা নেই

গোলাম মোস্তফা নিরু (২৬)। মাইক্রোবাসের রুজি দিয়েই চলতো সংসার। গাড়ির চাকার সঙ্গে থেমে গেছে তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.