রুহি তখনো জানে না বাবা নেই

গোলাম মোস্তফা নিরু (২৬)। মাইক্রোবাসের রুজি দিয়েই চলতো সংসার। গাড়ির চাকার সঙ্গে থেমে গেছে তার জীবনের চাকাও। মিরসরাইয়ে রেলক্রসিংয়ে দুর্ঘটনায় নিহত হয় মাইক্রোবাসের চালক গোলাম মোস্তফা। দাফনের জন্য গতকাল সকাল পৌনে ১০টার দিকে হাটহাজারী উপজেলার খন্দকিয়া গ্রামে নেয়া হয় তার লাশ। তখনো স্বজনের কোলে থাকা তার ৬ বছরের মেয়ে নাওরিন তাবাসসুম রুহি বুঝতে পারেনি বাবা আর কথা বলবে না। খাটিয়ায় শোয়া লাশ দেখে বার বার ছুটে যেতে চায় বাবার কাছে। দাফনের জন্য লাশ নিতে গেলেই অবুঝ শিশুটির কান্নায় ভারী হয়ে ওঠে খন্দকিয়া গ্রাম। খন্দকিয়া ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছোট্ট ওই মেয়েটির ‘বাবা বাবা’ বলে কান্নায় চোখের জল ধরে রাখতে পারেনি কেউ। এদিকে এক মাস পরেই কানাডায় পাড়ি জমানোর কথা ছিল মোস্তফা মাসুদ রাকিবের।

সব কিছু গোছগাছও শেষ পর্যায়ে। কিন্তু শুক্রবারের দুর্ঘটনা সব শেষ করে দিলো। নানার বাড়ি থেকে কানাডায় যেতে না পারলেও চলে গেলেন পারিবারিক কবরস্থানে। তার বাড়ি শিকারপুর ইউনিয়নের পূর্ব শিকারপুর মুছা মেম্বারের বাড়িতে। বাবা মোতাহের হোসেন খান প্রকাশ আব্দুল হালিম।
গত শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে মামা ওয়াহিদুল আলম জিসানের সঙ্গে যুগিরহাট কোচিং সেন্টার আর অ্যান্ড জে থেকে মিরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণা দেখতে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে মামা জিসানসহ দুর্ঘটনায় নিহত হন তিনি। দুইজনকে হারিয়ে পরিবারটি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। জিসান উপজেলার চিকনদন্ডী আজিজ মেম্বার বাড়ির মো. জানে আলমের ছেলে। জিসান কোচিং সোন্টারে শিক্ষকতার পাশাপাশি স্থানীয় একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। জানা গেছে, চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে কোচিং সেন্টারের শিক্ষার্থীদের নিয়ে আনন্দ ভ্রমণ শেষে বাড়ি ফেরার পথে মিরসরাইতে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত শিক্ষকসহ ১১ জনের জানাজা ও সৎকার সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার রাতে নিহতদের বহনকারী এম্বুলেন্স চিকনদন্ডী এলাকায় পৌঁছালে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে সাবেক মন্ত্রী ও হাটহাজারী থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ চিকনদন্ডী এলাকায় গিয়ে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে তাদেরকে সান্ত্বনা দেন।

পরে ১২টার দিকে ৩ জনের মধ্যে ২ জনের জানাজা ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। সাজ্জাদ হোসেনের জানাজা শেষে গ্রামের বাড়ি দক্ষিণ মাদ্রাসা নিয়ে ২য় দফা জানাজার পর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয় এবং আলম কোম্পানির বাড়িতে ওয়াহিদুল আলম জিসানের জানাজা শেষে তাকেও স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। শান্ত শীলকে ধলই ইউনিয়নের এনায়েতপুর গ্রামে তার মামার বাড়িতে সৎকার সম্পন্ন করা হয়। গতকাল সকাল ১০টায় উপজেলার ১২নং চিকনদন্ডী ইউনিয়নের যুগিরহাট এলাকায় ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে মোস্তাফা নিরু, সামিরুল ইসলাম হাসান, রিদুয়ান চৌধুরী, ইকবাল হোসেন, মারুফ ও জিয়াউল হক সজীবের জানাজা শেষে নিজ নিজ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

নিহতদের জানাজার ইমামতি করেন ষোলশহর জামিয়া আহমেদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার প্রাক্তণ অধ্যক্ষ মাওলানা সৈয়দ মোহাম্মদ অছিউর রহমান। এ সময় হাটহাজারী বড় মাদ্রাসার মহাপরিচালক মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াহিয়া উপস্থিত ছিলেন। তাছাড়া কে এস নজুমিয়া উচ্চ বিদ্যালয মাঠে মোসহাব আহমেদ হিসামের জানাজা এবং শিকারপুর ইউনিয়নে মাসুদ রাকিব ও ফতেপুর ইউনিয়নে আশিকের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার সময় হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিদুল আলম জানান, দুর্ঘটনায় নিহতদের দাফন কাফনের জন্য জেলা প্রশাসন থেকে নগদ ২৫ হাজার টাকা এবং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীনদের জন্য নগদ ১৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। যথা সম্ভব দ্রুত এ সহায়তার অর্থ তাদের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হবে।

Check Also

মীরসরাই ট্র্যাজেডি মৃত্যুর কাছ থেকে ফেরার বর্ণনা দিলেন জোনায়েদ

জোনায়েদ কায়সার (১৯)। হাটহাজারীর কেসি জিয়াউর রহমান কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। সেই ‘আর অ্যান্ড জে’ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.